আয়েশা নামের অর্থ কি ?

আয়েশা নামের অর্থ কি ? ( Aysha namer ortho ki) : মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্যে ইসলামের শুরুর দিক থেকেই আয়েশা একটি অত্যন্ত জনপ্রিয় নাম। আজকের আর্টিকেলে আমরা জানবো আয়েশা নামের অর্থ কি? আয়েশা নামের ইংরেজি অর্থ কি? আয়েশা নামের আরবি অর্থ কি? কে ছিলেন আয়েশা? আয়েশা নামের ইংরেজি বানান কি? আয়েশা নামের সাথে কোন নাম গুলো মানানসই?

আয়েশা নামের অর্থ কি ?

আয়েশা শব্দটির আভিধানিক অর্থ হল সচ্ছল, সমৃদ্ধশালী তত্ত্বাবধায়ক, সুখী জীবনযাপনকারী।

আয়েশা নামের আরবি অর্থ কি ?

আরবি আয়েশা ( Ayesha / Aysha) শব্দটির অর্থ হলো সুখী জীবন যাপনকারী, সমৃদ্ধিশীল, সচ্ছল।

আয়েশা নামের ইংরেজি অর্থ কি ?

ইংরেজিতে আয়েশা নামটি বিভিন্ন বানানে লিখা যায় । যেমন: Ayesha বা Aysha বা Aisha। ইংরেজিতে এই শব্দটির অর্থ হলো:
Happy Living, Women life.

আয়েশা কি ইসলামিক নাম ?

আয়েশা অবশ্যই একটি ইসলামিক নাম। আয়েশা শব্দটি একটি আরবি শব্দ। তাছাড়া আয়েশা মহানবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর স্ত্রীর নাম। আয়েশা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহার নাম থেকেই মুসলিম মেয়েদের নাম আয়েশা রাখা হয়।

আরবি ভাষায় ﻋﻴﺶ শব্দ থেকে আয়েশা নামটির উৎপত্তি যার অর্থ জীবন বা হায়াত। তাহলে আয়েশা ( عائشة) শব্দটির অর্থ দাঁড়ায় জীবন্ত বা জীবিত।আয়েশা নামের অর্থ কি

এই অর্থটি গ্রহণ করলে যখন কারো নাম আয়েশা রাখা হবে তখন আশা করা হবে শেষে দীর্ঘায়ু প্রাপ্ত হবে!

তাছাড়া আয়েশা শব্দটি আরো একটি অর্থ পাওয়া যায় তা হল স্বাচ্ছন্দময় জীবনের অধিকারী। এই অর্থ টি ও একটি সুন্দর অর্থ হিসেবে ধরে নেওয়া যায়। কেননা এতে সুখি হওয়ার এবং আরামদায়ক জীবনের অধিকারী হওয়ার আভাস রয়েছে।

আরবিতে – ﺭﺟﻞ ﻋﺎﺋﺶ শব্দটির অর্থ হলো উত্তম অবস্থার অধিকারী ব্যক্তি। (তাজুল আরসুস – ২৮২-২৮৩) উপরোক্ত অর্থটি এখান থেকে গৃহীত হয়েছে।

আরো জানুনঃ>>> রিয়া নামের অর্থ কি

আয়েশা শব্দ দিয়ে কিছু নাম :

১। আয়েশা মাহমুদ
২। আয়েশা তারান্নুম
৩। আয়েশা মিম
৪। আয়েশা সুলতানা
৫। আয়েশা সুমাইয়া
৬। আয়েশা মাহজাবিন
৭। আয়েশা মুজতাবিরাহ

হযরত আয়েশা (রাদিয়াল্লাহু তালা আনহা) এর সংক্ষিপ্ত জীবনী:

হযরত আয়েশা (রা:) ছিলেন ইসলামের প্রথম খলিফা হযরত আবু বকর রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহুর কন্যা। এবং বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ (সা:) এর স্ত্রী।
অতএব আয়েশা (রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহা) ছিলেন একজন “উম্মুল মুমিনীন” বা “বিশ্বাসীদের মা”।
আয়েশা (রা:) কেবলমাত্র উম্মুল মুমিনীন হিসেবেই সম্মানিত নন, বরং ইসলাম প্রচারের ক্ষেত্রে তার অবদান অনস্বীকার্য।

শিক্ষা ক্ষেত্রে অবদান:

হযরত আয়েশা (রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহা) অত্যন্ত বিচক্ষণ ও বুদ্ধিমতী ছিলেন। অসাধারণ জ্ঞান ও প্রজ্ঞার অধিকারিণী আয়েশা জ্ঞানের বিভিন্ন শাখায় বুৎপত্তি অর্জন করেন। বিশেষ করে কোরআনের তাফসির, হাদিস, ফিকহ এবং আরবের ইতিহাসের ওপর তিনি বিশেষ দক্ষ ছিলেন। এমনকি সাহাবীগণ শরীয়তের বিভিন্ন মাসআলা মাসায়েল ও নীতি নির্ধারণের ক্ষেত্রে তাঁর পরামর্শ নিতেন।
আয়েশা (রা:) এর মর্যাদা
হযরত আয়েশা (রা:) রাসুলের (সা:) অত্যন্ত প্রিয় সহধর্মিনী ছিলেন। উম্মুল মুমিনীনদের মধ্যে তিনি বিশেষ মর্যাদার অধিকারী ছিলেন।

রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) তাঁর সম্পর্কে বলেন: ” নারী জাতির উপর আয়েশার মর্যাদা তেমন, যেমন খাদ্যসামগ্রীর উপর সারিদের মর্যাদা।”
(বুখারী ও ইবনে মাজাহ)
সারিদ হল আরবের একটি শ্রেষ্ঠ খাদ্য। রুটি, গোশত ও ঝোলের সমন্বয়ে এই খাদ্যটি তৈরি হয়।

একবার রাসুলুল্লাহ (সা:) আয়েশা (রা:) কে লক্ষ্য করে বলেন, ” হে আয়েশা! ইনি জিব্রাইল, তোমাকে সালাম দিচ্ছেন।” (সহিহ বুখারী)

কোরআনে পবিত্রতা ঘোষণা:

আয়েশা (রা:) এতটাই সম্মানিত মহিলা যে, ইফকের ঘটনায় কাফেররা তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপবাদ দিলে, স্বয়ং আল্লাহ তাআলা কোরআনের আয়াত নাজিল এর মাধ্যমে তা খন্ডন করেন এবং তাঁর পবিত্রতা ঘোষণা করেন।

হাদিস বর্ণনা:
আয়েশা (রা:) সর্বাধিক হাদিস বর্ণনাকারী সাহাবীদের মধ্যে অন্যতম। তিনি রাসুলুল্লাহ (সা:) থেকে ২২১০ টি হাদীস বর্ণনা করেছেন। তাঁর বর্ণিত হাদীসগুলো থেকে ১৭৪ টি বুখারী ও মুসলিমে যৌথভাবে, ৫৪ টি সহীহ বুখারীতে এবং ৫৮ টি সহীহ মুসলিম স্থান পেয়েছে।

পরিশেষ :

আয়েশা (রা) এর সম্মান চিন্তা করলে আয়েশা একটি শ্রেষ্ঠ মুসলিম মেয়েদের নাম। তাছাড়া আয়েশা শব্দের অর্থও সুন্দর। আপনার কন্যা সন্তানের জন্য এই নামটি নির্দ্বিধায় পছন্দ করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *