ভালোবাসার গল্প ( হারানো ভালোবাসা )

হারনো ভালোবাসার গল্প পার্ট ১ঃ

মেয়েঃ আমি তোমাকে অসম্ভব মিস করেছি ।
ছেলেঃ হ্যা, তো ?
মেয়েঃ সত্যি আমি তোমাকে অনেক কাছে পেতে চেয়েছি।
ছেলেঃ ঠিক আছে বিশ্বাস করলাম।
মেয়েঃ আমাকে ক্ষমা করে দাও ?
ছেলেঃ কেনো ?
মেয়েঃ তুমি আমার সাথে যত যোগাযোগ করতে চেয়েছও সব ইগনর করার জন্য ।
ছেলেঃ অহ, ব্যাপার না। প্রথম প্রথম খারাফ লাগতো, তার পর একসময় আমি ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলাম, তার পর আমি চেষ্টা ছেড়ে ভুলা শুরু করেছিলাম।
মেয়েঃ আমিও তোমাকে ভুলতে চেয়েছি কিন্তু তোমার কথা শুধুই আমার মনে পড়তো । আর…
ছেয়েঃ …
মেয়েঃ আমি ভেবেছিলাম আমি হয়তো তোমাকে আর পাবো না, কারন পাঁচ বছর গত হয়ে গিয়েছিলো ।
ছেলেঃ ঠিক আছে ।
মেয়েঃ কীভাবে ঠিক আছে ? আমি কিছুই ঠিক দেখতে পাচ্ছি না ।
ছেলেঃ আমি ভাবতাম তুমি ফিরে আসবে । কিন্তু ছয় বছরেও আসনি । তারপর প্রকৃতি আমাকে বাস্তবতা শিখিয়েছে । আর আমিও আশা ছেড়ে এগিয়ে চলেছি ।
মেয়েঃ মানে ? আমি কি খুব দেরি করেছি ?
ছেলেঃ কিসের জন্য দেরি করেছো ?
মেয়েঃ তোমার কাছে ফিরে আসার জন্য ?

Read More >>  How to Sell Your House for big money

হারানো ভালোবাসার গল্প পার্ট ২ঃ

ছেলেঃ জানো এই কথা টা আমি আরো ২ বছর আগেও শুনতে ছেয়েছিলাম তোমার কাছে । কিন্তু এটা শুধু ইচ্ছে হিসেবেই রয়ে গেছে । তারপর আমি অনুভব করেছি এটা সম্ভব নয় । তারপর আমি আশা করা ছেড়ে দিয়েছি ।
মেয়েঃ আমি আন্তরিক ভাবে দুঃখিত , এই বার আমি তোমার সব স্বপ্ন পুরন করবো ।
ছেলেঃ এটা কখনই আর সম্ভব নয় । আমার জীবনে অন্য একজন ২ বছর আগে চলে এসেছে ।
মেয়েঃ তোমার জন্য তো ভালো হয়েছে এটা । কিন্তু সে কে ? তার সাথে আমি কি একটু দেখা করতে পারি ?
ছেলেঃ সে তো তোমার সাথে দেখা করবে না কখনই ।
মেয়েঃ কেনো ?
ছেলেঃ (ধীরে ধীরে বলছে) সে এমন কারো সাথে দেখা করতে চায় না যে আমাকে কষ্ট দিয়েছে । তোমার কাছে এইবার আমি ক্ষমা চাই । তুমি একবার আমার হৃদয় ভেঙ্গেছো । আমি সেই ঝুকি পুনরায় নিতে পারবো না। যাই হোক ৫ টি বছর কিছু না বলে নিরব থাকার পর আমার সাথে কথা বলতে আসার জন্য ধন্যবাদ।
মেয়েটি কাঁদতে কাঁদতে চলে গেলো । মেয়েটি চলে যাবার পর – ছেলেটি তার মানি ব্যাগ বের করলো আর সেখান থেকে মেয়েটির ছবি বের করলো । কয়েকফোটা জল তার চোখ থেকে বের হয়ে বুকের উপর পড়লো । আর সে বলোঃ ” সেই মেয়েটি আজো তুমি”

2 Comments

  1. সত্যি খুব সুন্দর গল্পটা! মন ছুয়ে গেল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *