Banglalink mb check

Banglalink mb check USSD code is *5000*500# now. Just dial this code  to see your internet data balance of your banglalink sim. Banglalink company is very good company in the bangladesh. This mobile sim operator company gives so many offers to their customers. So if you are using this company sim, you are very welcome. Here i am going to show you the easy process to see your internet balance. Just follow the steps below:Banglalink mb check

Banglalink mb check :

For prepaid and postpaid users of banglalink, this process are same. So you can follow the steps if you are a prepaid or postpaid users of this sim. Many times we use many sim to get some extra offers. See some amazing banglalink internet offers given below:

  1. To get 2 GB for 300 Days at 209 tk, just dial- *5000*581# and follow the instructions.
  2. To get 3 GB for 30 days at 249 tk, just dial- *5000*249# and follow the instructions.
  3. To get 6 GB for 30 days at 299 tk, just dial- *5000*299# and follow the instructions.
  4. To get 12 GB for 30 days at 399 tk, just dial- *5000*599# and follow the instructions.

Here all offers are updated at 19.09.2020 date. This offers are may change after any time. So please if you see these offers after long time from now. Then just avoid these offers. Thanks for understanding. Robi Balance Check

Now foolw the steps below to know the internet data balance of your own banglalink sim.

Step 1: Open you mobile phone set. Wait for ready your mobile. If you use smartphone it take some minutes to ready and open your handset. If you use normal button mobile phone set. It will open very quickly.

Step 2: Open your dialpad and just dial a simple ussd code. The code is *5000*500#. After dialing this code it will show your internet data balance.

Step 3: Now you have to note the information, you have got after dialing the ussd code. Keep in mind the code will be same for alltime. Banglalink give this code to all prepaid and postpaid users.

ক্যামেরা কিভাবে কাজ করে

ক্যামেরা কিভাবে কাজ করে । ক্যামেরা হলো ছবি তোলার একটি যন্ত্র। বিশেষ মুহুর্তের ছবি ধারন করে রাখা হয় ক্যামেরার মাধ্যমে সেই মূহুর্তকে স্বরণীয় করে রাখার জন্য। তবে এই ক্যামেরা কিভাবে কাজ করে বা কিভাবে ছবি তোলে আপনাদের জানতে ইচ্ছে করে না? আচ্ছা ভাবুন তো সৃষ্টির শুরুতেই যদি ক্যামেরা থাকতো তাহলে কেমন হতো? বিষয়টি খুবই চমৎকার হতো কিন্তু সেটি তো আর সম্ভব নয়। কারন ক্যামেরা তৈরি হয়েছে বিজ্ঞানী-দের দ্বারা। এবং আজকের বিজ্ঞান প্রযুক্তি যতটা উন্নত আগে এমনটা ছিল না। ক্যামেরা আবিস্কারের ইতিহাস সুদীর্ঘ।

ক্যামেরা কিভাবে কাজ করে

ইরাকের একজন বিজ্ঞানী ইবন-আল-হাইতাম ১০২১ সালে আলোক বিজ্ঞানের ওপর সাত খণ্ডের একটি বই লিখেছিল। বইটি ছিল আরবি ভাষায়, এবং বইটির নাম ছিল কিতাব আল মানাজির। সেই বইয়ের থেকেই ক্যামেরা আবিষ্কারের প্রথম সূত্রপাত হয়। কিন্তু এর পরে দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হয় একটি পূর্নাঙ্গ ক্যামেরা আবিস্কার করতে। এবং বহু বিজ্ঞানী এটি নিয়ে কাজ করেন। তবে বানিজ্য উদ্দেশ্য নিয়ে জর্জ ইস্টম্যান ১৮৮৫ সালে তার প্রথম ক্যামেরা ‘কোডাক’-এর জন্য পেপার ফিল্ম উৎপাদন করে।ক্যামেরা কিভাবে কাজ করে

এর পরেও ক্যামেরায় আসে আমূল পরিবর্তন। বর্তমান সেই আগেকার এনালগ ক্যামেরা নেই। সবই ডিজিটাল ক্যামেরা। এবং কার্য পদ্ধতিতে ও এই ক্যামেরা ভিন্ন। আসুন এনালগ এবং ডিজিটাল ক্যামেরা কিভাবে কাজ করে জেনে নেই।

এনালগ ক্যামেরা- আমরা জানি এনালগ ক্যামেরাতে “ফ্লিম” ব্যাবহার হতো ছবি তোলার জন্য। এবং এই ফ্লিম থেকেই স্টুডিও-তে গিয়ে ছবি বের করতে হতো। ক্যামেরা তৈরি করা হয় এমন ভাবে যারা ভিতরে লেন্স দিয়ে বাদে কোন ভাবেই যেন আলো প্রবেশ করতে না পারে এভাবে। এবং ক্যামেরা লেন্সের ভিতর দিয়ে যখন আলো প্রবেশ করে তখন ক্যামেরার ভিতরে একটি উল্টো প্রতিবিম্ব তৈরি হয়।

এবং ঠিক সেখানে-ই থাকে ক্যামেরা “ফ্লিম” যা তৈরি হয় সেলুলয়েড বা প্লাস্টিকের দ্বারা। এবং এই প্লাস্টিকের ফিতার গায়ে সিলভার হ্যালাইডের আস্তরন দেওয়া থাকে। এই সিলভার হ্যালাইড হচ্ছে আলোর সঙ্গে বিক্রিয়া ঘটায়। এবং এই বিক্রিয়া আলোর পরিমানের উপর হ্রাস বৃদ্ধি ঘটে। আলো বেশি হলে বেশি বিক্রিয়া হয় এবং কম হলে কম বিক্রিয়া। এবং লেন্সের মাধ্যমে যেহেতু আলো উল্টো প্রতিবিম্ব তৈরি হয় তাই এই আলো খুব সুক্ষ্ম ভাবে ক্যামেরায় প্রবেশ করে। এবং যেহেতু বাইরে থেকেও আলো প্রবেশের কোন উপায় নেই তাই লেন্স দিয়ে প্রবেশ করা আলোই ক্যামেরার ভিতরে যায়।

এখন যে স্থানে আলো বেশি পড়ে সেখানে বেশি বিক্রিয়া এবং কম স্থানে কম বিক্রিয়া। এই সূত্র ধরেই ফ্লিমে একটি হুবহু ছবি তৈরি করে ক্যামেরা। তবে এখানেই এনালগ ক্যামেরার কাজ শেষ নয়। এই ফ্লিম হাইপো দ্রবনে ধুয়ে নিতে হয়। ক্যামেরায় যেখানে বিক্রিয়া ঘটেছিল সেখানের ‘সিলভার হ্যালাইড’ হাইপো দ্রবনে উঠে যায়। এবং নেগেটিভ পাওয়া যায়। যা থেকে পরবর্তীতে আবার ছবি তৈরি করা হয়। রঙ্গিন ছবির ক্ষেত্রে এই বিক্রিয়া আরো জটিল ভাবে সম্পন্ন হয়।

এরপরে ছবি তৈরির জন্য এই নেগেটিভের মধ্যে দিয়ে আলো প্রবেশ করানো হয়। যার ফলে বিক্রিয়া ঘটা স্থান দিয়ে আলো প্রবেশ করে এবং বিশেষ প্রক্রিয়ায় সেটি ছবি প্রিন্ট করা হয়।

ডিজিটাল ক্যামেরা- আমরা বর্তমান সময় আর এনালগ ক্যামেরা ব্যাবহার করি না। এখন সকল ক্যামেরাই ডিজিটাল। এবং এতে কোন ফ্লিমের দরকার পড়ে না। এই ক্যামেরা লেন্সে ফ্লিমের পরিবর্তে ডট মেট্রিক্স পদ্ধতিতে বানানো বিশেষ ধরনের সোলার সিস্টেম দেওয়া থাকে। এবং এই সোলার সিস্টেম সাধারন সোলার সিস্টেমের মত নয়। এর উপর আলো পড়লে বিদ্যুৎ উৎপাদন হয়।

এই বিদ্যুত হচ্ছে কম্পনমান সম্পন্ন বিদ্যুৎ। তখন কাউন্টার নামের আইসি বিদ্যুত এর কম্পন মানকে বিশ্লেষণ বা গননা করে এনকোডারে প্রেরন করে। এবং এনকোডার একে বাইনারি মানে সাজিয়ে ফেলে এবং এপ্লিফাই করে র্যামে সংরক্ষণ করে। পরে ফটো ফরম্যাট সিস্টেম এই বাইনারি করে jpg,png,jpeg ফরম্যাটে। এবং পরবর্তীতে এই প্যাকেজ গুলো ওপেন করলে আমাদের সামনে হুবহু ছবিতে রুপান্তর হয়ে যায়।

এবং প্রিন্টারের সাহায্য নিয়ে এই ইমেজ প্যাকেজ গুলো প্রিন্ট করে ছবি প্রিন্ট করা হয়। এবং এনালগ ও ডিজিটাল ক্যামেরার সূত্র এক হলেও কার্যপ্রণালী সম্পুর্ন আলাদা। বর্তমানে আর এনালগ ক্যামেরা ব্যাবহার করা হয় না। কারন এনালগ ক্যামেরা দিয়ে যেমন ছবি তোলা কষ্টকর ও খরচ এবং সময় সাপেক্ষ। এবং নেগেটিভ নষ্ট হয়ে গেলে আর ছবিটি নতুন পাওয়ার কোন সম্ভবনা থাকে না।

অপরদিকে ডিজিটাল ক্যামেরার ছবি কম্পিউটারের হার্ডডিস্ক এবং বিভিন্ন মেমোরি ড্রাইভে সংরক্ষণ করা যায়। ইচ্ছে অনুযায়ী একাধিক কপি তৈরি করা যায়। চইলেই ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিভিন্ন মানুষের কাছে পাঠানো সম্ভব। কিন্তু এনালগ ক্যামেরাতে এটি সম্ভব নয়।

ইউটিউব কিভাবে টাকা দেয়

ইউটিউব কিভাবে টাকা দেয় সেই সম্পর্কে এখানে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে । বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় ভিডিও শেয়ারিং প্লাটফর্ম হচ্ছে ইউটিউব। এবং ইন্টারনেট ব্যাবহার করেন কিন্তু ইউটিউবে ভিডিও দেখে না এমন মানুষের পরিমান খুবই কম। প্রতিদিন মিলিয়ন বিলিয়ন মানুষ ভিডিও দেখছে ইউটিউবে। কিন্তু এসকল ভিডিওর একটিও কিন্তু ইউটিউব কোম্পানি নিজে তৈরি করে না। সকল ভিডিও তৈরি করে বিভিন্ন মানুষ এবং তা ইউটিউবে আপলোড করে আপনার আমার দেখার সুযোগ করে দেয়। কিন্তু কোন স্বার্থে তারা এই ভিডিও আপলোড করেন? আমরা সকলেই জানি ইউটিউব থেকে আয় করা যায় “ইউটিউব চ্যানেল” খোলার মাধ্যমে! কিন্তু ইউটিউব চ্যানেল থেকে কিভাবে টাকা আয় হয় বা ইউটিউব কিভাবে টাকা দেয় তা আমাদের অনেকরই আজানা। এবং এটি নিয়ে বিভিন্ন ভ্রান্ত ধারণা ও কাজ করে সাধারণ মানুষের মধ্যে। আসুন তাহলে ইউটিউব থেকে আয় সম্পর্কে ভ্রান্ত ধারণা ও ইউটিউব থেকে কিভাবে টাকা আয় হয় বা তারা কিভাবে টাকা দেয় জেনে নেই!

ইউটিউব কিভাবে টাকা দেয়

আমরা সকলেই জানি ইউটিউবে ভিডিও আপলোড করতে হলে একটি চ্যানেল দরকার হয়। এবং এই চ্যানেলের মাধ্যমে ভিডিও আপলোড করা হয় এবং এর থেকে আয় হয়। কিন্তু যারা নতুন তাদের মনে কিছু প্রশ্ন থেকেই যায় ইউটিউব থেকে আয় হয় কিভাবে এটা নিয়ে। তারা যেসকল কমন প্রশ্ন করে থাকে,
★ ইউটিউব কিভাবে টাকা দেয়।
★ কত ভিউ হলে কত টাকা দেয়।
★ আমি ইউটিউব চ্যানেল খুললে মাসে কত টাকা আয় করতে পারবো।
★ চ্যানেলে কতগুলো ভিডিও আপলোড করলে তারা টাকা দিবে।
★ কত ভিউ হলে তারা টাকা দিবে ইত্যাদি।ইউটিউব কিভাবে টাকা দেয়

এসকল প্রশ্ন মূলত তারাই করে যাদের ইউটিউব সম্পর্কে নূন্যতম ধারনা নেই! এবং যারা এসকল প্লাটফর্মের আয়ের উৎস সম্পর্কে জানে না। ইউটিউব মূলত আয় করে বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে। তারা বিভিন্ন কোম্পানি হতে বিজ্ঞাপন সংগ্রহ করে এবং তা বিভিন্ন ভিডিও এর মাধ্যমে দর্শকদের প্রদর্শন করে। এই বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের জন্য তারা সেই কোম্পানি হতে বিজ্ঞাপনের বিনিময়ে অর্থ গ্রহণ করে। কিন্তু ইউটিউব যেহেতু নিজস্ব ভাবে কোন কন্টেন্ট তৈরি করে না তাই কন্টেন্ট ছাড়া একদিকে যেমন তাদের ইউটিউব অচল ঠিক একই ভাবে বিনা পারিশ্রমিকে কেউ নিত্য নতুন ভিডিও আপলোড করবেন না।

এ কারনেই ইউটিউব কোম্পানি বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে অর্জিত অর্থের নির্দিষ্ট পরিমান অংশ কন্টেন্ট ক্রিয়েটরদের দিয়ে থাকেন। আর এই মাধ্যমেই ইউটিউব টাকা দিয়ে থাকে। কিন্তু এর পরেও প্রশ্ন থেকেই যায়। আমি কি ভিডিও আপলোড করলেই আয় করতে পারবো ?

আরো বিস্তারিত

না ভিডিও আপলোড করলেই আপনি আয় করতে পারবেন না। আয় করতে হলে আপনার ইউটিউব চ্যানেলটি গুগল এডসেন্স এর মাধ্যমে মনিটাইজেশন অন করতে হবে। মনিটাইজেশন (Monetization) হলো ইউটিউব আমাদের চ্যানেলে বিজ্ঞাপন দেখাক এর জন্য আবেদন করা। অর্থাৎ আমার একটি ইউটিউব চ্যানেল আছে এবং এটি থেকে আমি আয় করতে চাই। এবং যেহেতু আয় আসে বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে তাই মনিটাইজেশন-ই হলো আয়ের একমাত্র মাধ্যম। তবে আপনি চাইলেই চ্যানেল মনিটাইজেশন করতে পারবেন না। এর জন্য রয়েছে কিছু শর্ত। চ্যানেলে ১০০০ সাবস্ক্রাইবার থাকতে হবে এবং ভিউওতে ৪০০০ ঘন্টা ওয়াচ টাইম। এবং সম্পুর্ন কপিরাইট মুক্ত কন্টেন্ট। কারন কপিরাইট কন্টেন্ট হলে কোন দিনই আপনি আয় করতে পারবেন না ইউটিউব হতে। এসকল শর্ত পূরন করতে পারলেই আপনি আবেদন করতে পারবেন। এবং যদি সব ঠিকঠাক থাকে আপনি মনিটাইজেশন পাবেন।

যখন আপনার ভিডিও ভিউ হবে তখন তারা আপনার ভিডিওয়ের ভিতরে অটোমেটিক বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করবে। এবং এই বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে যত টাকা তারা আয় করবে তার থেকে আপনি একটা নির্দিষ্ট পরিমান টাকা পাবেন।

যখন ভিডিও এর ভিতরের বিজ্ঞাপনে কোন ভিজিটর ক্লিক করবে তখন তারা আপনার এডসেন্স একাউন্টে জমা করে দিবে এবং আপনি ব্যাংক একাউন্ট কানেক্টেড করার মাধ্যমে বাংলাদেশের যে কোন ব্যাংক হতে টাকা তুলতে পারবেন। প্রতিমাসে একটি নির্দিষ্ট তারিখে তারা টাকা পাঠিয়ে দিবে। তবে পেমেন্ট পেতে হলে অবশ্যই আপনার এডসেন্স একাউন্টে কমপক্ষে ১০০ ডলার হতে হবে। কারন গুগল ১০০ ডলারের নিচে পেমেন্ট করে না।

তবে এখানে মনে রাখত হবে আপনি চাইলে-ই নিজেই ক্লিক করে আয় করতে চাইলে সব হারাবেন। কারন গুগল চায় তাদের গ্রাহককে সকল সময় সর্বোচ্চ মানের সেবা প্রদান করতে। এবং তাদের দ্বারা প্রদত্ত বিজ্ঞাপন যেন সঠিক গ্রাহকদের সামনেই উপস্থাপন হয় সে বিষয়েও তারা বদ্ধপরিকর। এ কারনে যদি আপনি আয় বৃদ্ধির জন্য নিজেই ক্লিক করেন তাহলে আপনার এডসেন্স একাউন্ট টি ডিজেবল করে দিবে তারা এবং আপনার ইউটিউব চ্যানেলে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন বন্ধ করে দিবে।

হোয়াটসঅ্যাপের বিকল্প নিয়ে আসছে সৌদি আরব

বর্তমান সময়ের সর্বাধিক জনপ্রিয় মেসেজিং প্লাটফর্ম হচ্ছে হোয়াটসঅ্যাপ। প্রতিদিন লক্ষ কোটি মানুষ তাদের প্রিয় জনের সাথে টেক্সট বা ফাইল শেয়ার করছে। তবে সাম্প্রতিক সময়ে সৌদি আরব হোয়াটস অ্যাপের বিকল্প পরিষেবা আনছে। এবং তাদের এই বিকল্প পরিষেবা হবে সম্পুর্ন সৌদি আরব নির্ভর। এর জন্য কাজ করে যাচ্ছে সৌদি আরবের কিং আবদুল আজিজ সিটি ফর সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি (কেএসিএসটি)।

মূলত তাদের এই পদক্ষেপ নেওয়ার প্রধান কারন ব্যবহারকারীর তথ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা। এবং এই মেসেজিং প্লাটফর্ম এক বছরের মধ্যে-ই চালু করবে বলে জানান কিং আবদুল আজিজ সিটি ফর সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজির পরিচালক বাসিল আল-ওমির। তিনি আরও জানান তাদের এই মেসেজিং প্লাটফর্ম হবে হোয়াটসঅ্যাপ এর বিকল্প এবং আমরা গ্রাহকদের ডেটার সর্বাধিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করাই হলো আমাদের মূল লক্ষ্য।

প্রথম দিকে তাদের তৈরি এই মেসেজিং প্লাটফর্ম উন্মুক্ত করা হবে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এবং বিভিন্ন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের জন্য। যার মাধ্যমে তারা নির্বিঘ্নে তাদের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য একে অপরের সাথে আদান প্রদান করতে সক্ষম হবে। বিভিন্ন ফাইল নথি ও নির্বিঘ্নে ট্রান্সফার করতে পারবেন। এবং ভবিষ্যতে সম্পুর্ন দেশব্যাপী এই পরিষেবা উন্মুক্ত করা হবে। এর ফলে সৌদি আরবের জনগণ একটি সুরক্ষিত কমিনিউকেশন গড়ে তুললে পারবেন বলে জানান তারা।

তাদের তৈরি এই মেসেজিং প্লাটফর্ম তৈরি হচ্ছে সম্পুর্ন দেশীয় এপ্স ডেভলপারদের দ্বারা। যার জন্য কোন বিদেশি আইটি এক্সপার্ট-দের সহযোগিতা তারা গ্রহণ করা হচ্ছে না। এবং তাদের নিজস্ব সার্ভারের মাধ্যমেই পরিচালনা করা হবে হোয়াটসঅ্যাপের আদলে তৈরি এই মেসেজিং প্লাটফর্ম।

তাদের এই প্লাটফর্ম তৈরির মূল লক্ষ্য হচ্ছে তাদের দেশের গুরুত্বপূর্ণ নথি বেহাত হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করা এবং ডেটা কেলেঙ্কারির মত ঘটনা রোধ করা।

গুগল দিবে বন্যার পূর্বাভাস বাংলাদেশকে

ভারতের কিছু অংশ এবং বাংলাদেশ হচ্ছে পৃথিবীর সর্বোচ্চ বন্যা ঝুঁকিপূর্ন অঞ্চল। প্রতি বছর বন্যার কারনে ভারতের এসকল এলাকায় এবং বাংলাদেশে প্রচুর পরিমানে ক্ষয়ক্ষতি হয়। বিপুল পরিমাণ সম্পদ নষ্ট হওয়ার পাশাপাশি মানুষের প্রানহানীর ঘটনাও ঘটে বন্যার কারনে। সাম্প্রতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্বনামধন্য প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান গুগল বাংলাদেশের মানুষকে বন্যার পূর্বাভাস দিবে বলে জানিয়েছেন।

গুগল জানিয়েছে বাংলাদেশের মানুষদের তারা রিয়েল টাইম বন্যার সর্বশেষ আপটেড দিবে। মোবাইল নোটিফিকেশনের মাধ্যমে এ সেবা দিবে বলে তারা জানান। প্রথম অবস্থাতে তারা ৪ কোটি মানুষকে এই নোটিফিকেশন পাঠাবে বলে জানিয়েছে। এবং পরবর্তী সময়ে এ সেবা সমগ্র বাংলাদেশ ব্যাপি বিস্তৃত করার পরিকল্পনা রয়েছে তাদের।

গুগলের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে তারা বাংলাদেশের পানি উন্নয়ন বোর্ডের সঙ্গেও চুক্তি করেছে এই বন্যা পূর্বাভাসের বিষয়ে। এবং তারা প্রধানত এতদিন ভারতকে এই পরিষেবা দিয়ে আসছিল এবং এর পরে বাংলাদেশ নিয়ে তারা অগ্রসর হচ্ছে।

মূলত গুগুলের আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (AI) মনিটরিং সিস্টেমের মাধ্যমে বিশ্বের শত শত নদনদীর তথ্য তারা সংগ্রহ করে। এবং সেই অঞ্চলের মানুষকে বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত দিয়ে সহযোগীতা করে আসছে।

গুগলের এই পরিষেবার মাধ্যমে বন্যার আগেই পূর্বাভাস পাবে বাংলাদেশের মানুষ এবং বন্যা কেমন আকার ধারন করতে পারে বা এর উচ্চতা সম্পর্কেও তথ্য দেবে তারা।

ভারতের সেন্ট্রাল ওয়াটার কমিশন, ইয়েল ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি এবং বার-ইলান বিশ্ববিদ্যালয় ও কাজ করছে গুগলের এই পূর্বাভাস ব্যবস্থার জন্য বলে জানিয়েছেন তারা।

How to keep safe and secure wordpress site

Here you will see how to keep safe and secure wordpress site. There are one-third percent websites are powerd by wordpress cms. This is very popular cms in the world. For easy operationg system, this cms is like most of webmasters and web developers. Just follow these easy steps below.How to keep safe and secure wardpress site

How to keep safe and secure wordpress site

First of all, you have to take a full website backup. And keep it in any safe place. I personally keep my all sites backup in my pendrive. You can use google drive or dropbox to keep your all sites backup.

And than, you have to install just three free wordpress plugins. Again say, just three free plugins. These three plugins keep your site safe from hacker or malicious. Lets see these three free wordpress plugins and their settings.

  1. Wordfence: This is very popular security plugin for wordpress platform. For free use, this plugin likes almost every wordpress developer or blogger. You can ask me- do you use this plugin in your site ? My answer is- obviously. I like this very much. Because this plugin keep me some rest and mantally relux. I can keep my 90% confidence to this plugin. You have to know another 10% warranty can not give any one in the world. So install this plugin in your own business website or blog.
  2. WPS hide login: This plugin also very popular to secure your wordpress website. Very simple to use this free plugin. Just install this plugin and start using. After installing this plugin- you have to set up a login admin url. Just like this- https://facebook.com/anything instead of https://facebook.com/wp-admin. So here your admin panel can not access. To access your admin panel, you have to type the changed admin url (youdomain.com/yourname). This will secure your site from automatic access or malicious.
  3. Really simple ssl: Keep in mind, to use this free plugin, you have to install a ssl certificate in your hosting. To get a free ssl certificate, you can buy host from any company with free ssl. Than they will give you free ssl for your site after installing your site in their hosting server. To active this plugin, just install this plugin in your wordpress. After installing this plugin, you will be redirect to your login page. Than just login with your username and password again.

How to take backup your full wordpress site

Here i am showing you- how to take backup your full wordpress site in very easy way. If you have a website and it manage from wordpress cms, than you have to know some important steps to keep your site active all time. Your website is your business. So to keep your business profitable you have to keep safe your business. Here you will know how to take you full wordpress site in a easy way.How to take backup your full wordpress site

How to take backup your full wordpress site

Step 1: At first, you have to login your hosting cpanel with your username and password. After login you will get the “Backup” button. Click the backup button and scroll down, you will get your sites databases list. From this list you have to download the database of your main site, which site you want to take backup. Click on the database link, you will see your database is downloading in your local pc. The file may be the size maximum 1-6 MB. So this is the very small to download. Keep and store this database file in your safe place. It will need when you will restore your site.

Step 2: Now you have click “File manager” button from your hosting cpanel. After clicking the button, you will see all files of your hosting. You will see the “public_html” folder. This is the main files directory of your site. Enter the directory. Now you will see your all wordpress files at once. Now select all files and click compress button from upper site menu of cpanel. If you click on the compress button, you will see your all files are made a zip file. This zip files size may be maximum 100-500 mb. Now download this zip file and keep this file in a safe place. You can keep store these two files in google drive or dropbox.

Redmi Note 7 price in bangladesh

Redmi Note 7 price in bangladesh . Xiaomi or Redmi is a well-known mobile brand that provides lots of incredible models to its customers. Keeping that trend alive, Xiaomi has come up with “Redmi Note 7” which has created a massive stir among the customers. This model may be the best choice for customers looking for a quality device on a low budget. Performance, battery life, camera quality are all great packages.
Do you like to know more about “Redmi Note 7”? No problem, we can help you to know the details. We will now try to elaborate on this remarkable model. So let’s get started with it. Samsung Galaxy A50 Price In BangladeshRedmi Note 7 price in bangladesh

Redmi Note 7 price in bangladesh

Price BDT17,999 3/32 GB

BDT19,999 4/64 GB

BDT21,999 4/128 GB

Release Date 2019, January
Body Color Onyx Black, Ruby Red, Sapphire Blue
Body Dimension 159.21 x 75.21 x 8.10
Body Weight 185.00 g
Build Glass
Display Type Gorilla Glass
Display Size 6.30 inches
Display Resolution 1080×2340 pixels
Operating System Android 9.0
CPU Octa core, up to 2.2 GHz
GPU Adreno 512

Display and Design:

The design of this device is almost the same as other models of Xiaomi. The front and back edge-to-edge glass sits on the central waistband and the device uses Gorilla Glass 5 to keep scratches to a minimum. Its size is 6.1mm that means it is so slim. The size is also very finely proportioned, without a bezel on display and uses a drop groove for the front camera. Its bezel is a bit thick, so it’s not quite symmetrical, but there’s very little you can complain about.
Yiu will also love the color of the display. It’s quite nice enough not to raise too much concern, but it does show some frustration and the glorious-saturated OLED panels found in high-space devices.

Hardware and Software:

The Redmi Note 7 comes from Qualcomm’s mid-range platforms. MIUI introduces a higher degree of replacement and duplication of applications, which does not require a fully functional Google Account. In China, of course, Redmi runs MIUI without all the Google functions that the UK uses us. It explains many similarities, so while it is strange, it is acceptable based on affordable price.

Camera:

The latest smartphone trend is deploying a 48-megapixel sensor, with Sony’s IMX and Samsung’s alternative sensor options spread across all brands. This number may sound like a resumption of the megapixel race, but by default, both sensors use four pixels to create an over-sampling for sharper results at 12-megapixels. You can manually add the 48MP option to the menu if you want, but the title image is not a reflection of what you will get from this phone’s camera.

Final Thoughts:

Xiaomi has always been adept at meeting the needs of customers. Redmi Note 7 is no exception. This model has come up with some excellent features to meet the needs of the customers. We have tried to highlight in our article about this model. Hopefully, you got enough idea about this model through our tiny precast. If you want to know more about this model, you can comment us in the comment box or contact us directly. We will try to answer to you. Thank you all.

Samsung a20 price in bangladesh

Samsung a20 price in bangladesh . Samsung is a well-known brand in the mobile world that has delivered some of the best quality devices to consumers. The Samsung Galaxy A20 is one of its many models. Samsung Galaxy A20 may be the most suitable device for low budget buyers. Although it is relatively low priced compared to other flagship models, it has several premium functions that can impress any customer. Let’s discuss this model in detail without delay.Samsung a20 price in bangladesh

Specifications of Samsung Galaxy A20

Price BDT 15,990
Release Date March, 2019
Body Color Black, Red and Deep Blue
Body Dimension 158.4 x 74.7 x 7.8 mm
Body Weight 169 Grams
Build Glass front, plastic body
Display Type Super AMOLED
Display Size 6.4 Inches
Display Resolution 720 x 1560 pixels
Display Density 268 ppi
Operating System Android 9.0 (Pie) + One UI
User Interface (UI) Yes
CPU Octa-core (2×1.6 GHz Cortex-A73 + 6×1.35 GHz Cortex-A53)
GPU Mali-G71 MP2
Chipset Exynos 7884 Octa (14 nm)
Memory Internal 32 GB
Ram 3 GB
Camera (Back) 13 MP (wide) AF + 5 MP (ultrawide)
Camera (Front) 8 MP
Camera Features
Sensors Fingerprint (rear-mounted), accelerometer, gyro, proximity, compass
Battery Capacity Li-Po 4000 mAh battery + Fast battery charging 15W
Battery Charging 15W Fast Battery Charging

Design:

This model does not change much compared to other smartphones in the market. However, the uniqueness of Samsung A20 is that it has a smooth overall color to maximize the display with minimal design. You are presented with a fingerprint sensor on the back of the device. At the bottom of the phone, you’ll find a USB-C for charging your headphones with a 5.1 headphone jack connector. The Samsung Galaxy A20 is very comfortable in your hand with rounded corners and sides, making it easy to hold for more time.

Samsung a20 price in bangladesh

Display and Color:

The Samsung Galaxy A20 is equipped with a 6.4-inch Super AMOLED display. While we don’t want to notice that the display only has HD + resolution, it’s better than what you usually find on your budget smartphone. There is a small V-cut in the middle of the top of the display where the front camera is placed.
You will find three different colors of this device. One is black, which is always a favorite one, red for those who want something a little more spicy and deep blue for those who want something more neutral and don’t want to be black.

Performance:

The Samsung Galaxy A20 is a budget phone, meaning it is not as powerful as the flagship model smartphone. It brings an acceptable amount of power with its Exynos 7885 processor (although slower than the Aminos, M30 and A30 equipped Exynos 7904). The overall performance is incredible, and 3G of RAM is enough to run several basic applications that you can use on the phone.

Camera:

Samsung always tries to bring good quality cameras in its models; this model is no exception. It features 13MP rear and a second 5MP wide-angle shooter. There is also an 8 MP camera on the front, which is good enough for taking selfies.

Battery:

The Samsung Galaxy A20 is equipped with a 4000 mAh battery, which gives it enough power to run for a full day. Samsung has put them on fast charging to give the phone more mileage for the day. The old mini USB has been converted to a USB-C, which means you no longer have to worry about how to plug it in.

Final Thoughts:

The Samsung Galaxy A20 is a great budget-friendly device. It can be an excellent option for you if you have a small budget. Although low priced, it has come up with all the excellent features. We have tried to highlight this model in detail in our article. Hopefully, you got enough ideas through this small effort of ours.

Samsung Galaxy M31s Review

Introduction:

Good news for Samsung lovers as their wait is about to end. Recently Samsung has come up with a new model for its customers and that is “Samsung Galaxy M31s”. If you are looking for a good quality mid-range device, this model may be the best choice for you. The remarkable features, performance, battery life and design of this model can impress anyone.
Surely you are interested in “Samsung Galaxy M31s” now, right? We are now going to discuss this model in detail. Hopefully, through this discussion, you will get a full idea of this model. So let’s get started with it.

Design and Display:

If you compare the Galaxy M31 with the Galaxy M31s, you can easily see the difference in design between these two models. The Samsung Galaxy M31s comes with a slightly modified design. This marks a slight upgrade in its design language that Samsung has yet to engage in its M-Series lineup. The device’s primary plastic look and feel remain the same as its predecessors, with the Galaxy M31S opting for a gradient coloring on the back that gives the device its own identity.
The handset flaunts a gradient design on the back and is available in two fun options- Meraj Black and Meraj Blue.
You get a 6.5-inch ZFHD + Super AMOLED display with a 91% screen-to-body ratio and 20: 9 aspect ratio.

Performance:

The Samsung Galaxy M31s comes with the Aquinos 9611 SC, which clocks up to 2.3GHz above 73 cores in 4 ARM cortex and up to 53 cores 1.7GHz on 4 ARM cortex. Suppose this configuration seems familiar to you because Samsung has shipped several devices with the same setup, including the Galaxy A50, Galaxy A5, Galaxy M30 and Galaxy M31. The only “upgrades” that Samsung has saved from the Galaxy M31 to the Galaxy M31 is that the next 128GB of storage comes as standard, and it gets an 8GB RAM option.

Hardware and Software:

The Samsung Galaxy M31s comes with Exynos 9611 processor. It has two RAM / storage variants, one is 6GB + 12GB and the other is 8GB + 12GB. You can also find microSD support with it.
Another great feature of this device is, it comes with a massive 6000mAh battery paired with 25 fast charging support. You can also get a 25W fast charger in the box.

Camera:

Do you like to capture all the beautiful scenes of nature? If your answer is yes, then this device may be most suitable for you. This device comes with a quad-camera setup with a 64MP primary camera with f / 1.8 aperture, a 12MP ultra-wide lens with f / 2.2 aperture, a 5MP depth lens and finally a 5MP macro lens. It will be an excellent device for selfie lovers as on the front; it has a 32MP camera.

Final Thoughts:

The Samsung Galaxy M31s is an excellent device that offers a wide range of features at an affordable price. This device may be the most suitable option that can meet all your needs. You can buy this device without any worries. We have tried to highlight the details of this device in our article. Hopefully, you got enough ideas through our small effort. If you have any further questions about this device, you can comment on us directly or contact us directly. We will try to answer you. Thank you all.