জ্যোৎস্না রাত নিয়ে ক্যাপশন

জ্যোৎস্না রাত নিয়ে ক্যাপশন কবিতা উক্তি স্ট্যাটাস ও কিছু কথা নিয়ে আমাদের আজকের পোস্ট । জ্যোৎস্না রাতের এই ক্যাপশন গুলো শেয়ার করতে পারেন আপনার প্রিয় মানুষের সাথে । প্রেমের জন্য মানুষ কত কিছুই তো করে । ভালোবাসার মানুষ কে জ্যোৎস্না রাতের এই কথা গুলো দিয়ে না হয় চমকে দিলেন । তাহলে আসুন দেখে নেয়ার যাক আমাদের এই স্ট্যাটাস গুলো ।জ্যোৎস্না রাত নিয়ে ক্যাপশন

জ্যোৎস্না রাত নিয়ে ক্যাপশন :

১. নিঃসঙ্গ জোছনা আলোয় একাকিত্ব ডুবিয়ে তোর কথাই ভাবি
অন্তর্যামি জানে কি অবলীলায় মনের কোণে শুধু তোর ছবিই আঁকি!

২. চাঁদেরও তো কলঙ্ক আছে, আছে এক বুক কষ্ট। কিন্তু তবুও সে কলঙ্ক ভুলে চাঁদ কিন্তু ঠিকই এক রাশ রুপালি জোছনা ছড়িয়ে দেয় চারপাশে।

৩. চাঁদের জোছনার আলোতে তোমার মুখখানা দেখবার শখ আমার আজীবনের। বড্ড ইচ্ছে করে সৌন্দর্য্যের দুই দেবীকে মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে একটা বিদ্বেষ বাঁধিয়ে দেই।

৪. জোছনার একছটা রুপালি আলো যেন আমার দুঃখ বিষাদ আরো বাড়িয়ে দেয়। নীরব মায়ায় সমস্ত দুঃখ একত্রে জড়ো করে।

৫. জোছনার আলোতে তোমার ঐ লাজ রাঙা চিবুক
প্রেম নিবেদনে মত্ত আমার এই বুক।

৬. অপেক্ষিত অন্তর আঁধারিয়ার সুখে
আঁকবে ভালোবাসা রুপালি চাঁদ
জোছনা পরিস্রুত দুঃখ চাপা বুকে।

৭. মাঝরাতে হঠাৎ ঘুম ভেঙে গেলে ছাদে গিয়ে জোছনা দেখি। হাত বাড়িয়ে জোছনা ধরতে যাই। মনে মনে ভেবে নেই, ঐ জোছনার বুকেই লুকিয়ে আছো তুমি।

৮. পৃথিবীতে বৈপরীত্য খুব প্রয়োজন। যেমনি প্রয়োজন ভালোর তেমনি প্রয়োজন আছে খারাপেরও। সূর্যের প্রখর তাপ না থাকলে কেউ চাঁদের জোছনার স্নিগ্ধতা বুঝতো না।

৯. মানুষের জীবনও অনেকটা চাঁদ আর জোছনার মতোই। চাঁদ যেমন কয়দিন পর ঠিক আকাশের মাঝে ধরা দেয়, তেমনি মানুষও যাই করুক, শেষমেশ ভালোবাসার মানুষদের কাছেই ধরা দেয়।

১০. প্রত্যেকের চরিত্রেরই একটি চাঁদের জোছনার মতো আলোকিত দিক এবং একটি অন্ধকার দিক আছে। সবাই আলোকিত দিকটাই প্রকাশ করে, অন্ধকারটা সবাই লুকায়।

১১. চাঁদ আর তার জোছনা মিলে একাই সমস্ত আকাশ আলোকিত করতে পারে না, তারার মৃদু মৃদু আলোরও প্রয়োজন আছে। তেমনি মানুষের জীবনেও ছোট সাহায্যর প্রয়োজন আছে।

১২. কথায় বলে, যারা চাঁদ কিংবা জোছনা দেখে আনন্দিত হয় না। তাদের মনে হিংসা ও হিংস্রতা ছাড়া আর কিছুই নেই। তাদের থেকে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখুন।

১৩. চাঁদের আলো তার জোছনা দিয়ে আপনাকে সর্বদা পথ দেখাবে, কিন্তু সে নিজে থাকবে এক অন্ধকার আকাশের মধ্যে।

১৪. সারাদিন রৌদ্রতেজে পুড়ে দিনের শেষে চাঁদের রুপালি জোছনা যেমন মোলায়েম এক শান্তির পরশ বুলিয়ে দেয়, তেমনি সমস্ত দিনের ক্লান্তি শেষে তোমার মুখের ঐ একটু হাসি, সমস্ত বিষাদ মুছে দেয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *