ডিপ্রেশন নিয়ে স্ট্যাটাস

ডিপ্রেশন নিয়ে স্ট্যাটাস উক্তি ক্যাপশন পোস্ট ও এসএমএস নিয়ে আমাদের আজকের লেখা । ডিপ্রেশন আসে না এমন কারো জীবন নেই । সবার জীবনেই কোন না কোন সময় ডিপ্রেশন আসে । তবে এই ডিপ্রেশন জিনিসটা আমাদের জন্য খুবই ক্ষতিকর । আমরা এটা থেকে বেঁচে থাকার চেষ্টা করতে হবে । তা না হলে এটা আমাদের জীবনকে তিলে তিলে শেষ করে দেবে । আসুন তাহলে ডিপ্রেশন নিয়ে স্ট্যাটাস ও ক্যাপশন গুলো পড়ে দেখা যাক ।

ডিপ্রেশন নিয়ে স্ট্যাটাস :

১. মানুষের জীবনে না পাওয়া থেকে ডিপ্রেশনের সূত্রপাত হয়। ডিপ্রেশনে ভোগা একজন মানুষ ই বলতে পারে সে ঠিক কিসের ভেতর দিয়ে যাচ্ছে। আশেপাশের মানুষ তার অবস্থাটা চিন্তাও করতে পারবে না।

২. ডিপ্রেশন অনেকটা নীরব ঘাতক ক্যান্সারের মতো। চুপিসারে একটি হৃদয়কে আস্তে আস্তে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়। তখন মানুষ আস্তে আস্তে অনুভূতি হারিয়ে ফেলে।

৩. স্বপ্ন দেখার পর ব্যর্থ হয়ে মানুষ প্রচন্ড রকমের ডিপ্রেশনে চলে যায়। তখন আর মানসিকভাবে তার নিজের উপর কোন কন্ট্রোল থাকে না। স্বপ্ন ভাঙার ব্যথা সর্প দংশনের মতই ভয়ংকর।

৪. একজন মানুষের ডিপ্রেশনে থাকার জন্য হাজারো কারণ থাকতে পারে। যার মধ্যে সবচেয়ে বড় একটা কারণ হচ্ছে প্রেমে ব্যর্থ হওয়া। অথচ মানুষ হিসেবে আমাদের সবার আগে নিজের প্রেমে পড়া উচিত ছিল।

৫. একজন মানুষের হতাশ হওয়ার জন্য দুটি কারণই যথেষ্ট। প্রথমত উচ্চ আকাঙ্ক্ষা দ্বিতীয়ত অন্যের কাছে আশা করা। আমরা ভুলেই যাই যে, পৃথিবীতে কারো কাছে স্বার্থ ছাড়া কোন কিছুর মূল্য নেই।

৬. আমরা যখন অন্য কারো কাছে নিজের সুখকে নির্ভরশীল করে দেই তখনই আমাদেরকে ডিপ্রেশন ঘিরে ধরে। কারো কাছ থেকে নিজস্ব আঙ্গিকে আচরণ না পেলেই আমাদের মন খারাপ হতে শুরু করে।ডিপ্রেশন নিয়ে স্ট্যাটাস

৭. গড়ে প্রায় প্রতিটি মানুষই কোনো না কোনো ডিপ্রেশনে আক্রান্ত। প্রবল ইচ্ছা শক্তি এবং আত্মনিয়ন্ত্রণ ডিপ্রেশনের মহা ঔষধ। সময় মত নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে যে কোন মানুষ অতল গভীরে হারিয়ে যাবে।

৮. নিজেকে হারিয়ে পৃথিবীর কোন কিছুতেই সুখ খুঁজে পাওয়া যায় না। ‌ আগ্রাসী হতাশা এসে ভর করে আমাদের জীবনে। শেষ পর্যন্ত ডিপ্রেশনের পরে কত লোক যে নিজেকে শেষ করে দেয় তা আমাদের অজানা থেকে যায়।

Read more:>>> কষ্টের স্ট্যাটাস

৯. কতটা ডিপ্রেশনে থাকলে আমরা আমাদের অনুভূতিকে গলা টিপে মেরে ফেলি। আমরা হাসতে ভুলে যাই, কান্না টা ও শুকিয়ে যায়। হৃদয় যেনো এক শূন্য মরুভূমিতে পরিণত হয়।

১০. আজকালকার সময়ে খুব সহজেই ডিপ্রেশন মানুষকে গ্রাস করে ফেলছে। মানুষের মানসিক শক্তি যেন ঠুনকো হয়ে গেছে। এ থেকে যেন কারোরই মুক্তি নেই।

ডিপ্রেশন নিয়ে কিছু কথা :

১১. কাউকে না পাওয়ার চেয়ে বরং পেয়ে হারিয়ে ফেলা টা বড় ধরনের ডিপ্রেশন তৈরি করে। ডিপ্রেসড মানুষটা ধীরে ধীরে একজন সাইকোতে পরিণত হয়। যে কাউকেই সে হঠাৎ করে আঘাত দিয়ে ফেলতে পারে।

১২. এই প্রজন্মের ওপর ডিপ্রেশন যেন একটা মারাত্মক অভিশাপ। তরুণদের একটা অংশ ভেতরে ভেতরে গুমড়ে মরে যাচ্ছে। অথচ সেটা প্রকাশ পাচ্ছে না। গোপনে সমাহিত হচ্ছে কত শত হৃদয়।

১৩. অবহেলা আর অবজ্ঞার কারনে সম্পর্ক গুলোর ভেতর নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। দুপক্ষ হয়ে প্রচন্ড রকমের ডিপ্রেসড কিন্তু কেউ কারো সাথে শেয়ার করতে পারেনা। মাঝখানে আবার ইগো চলে আসে।

১৪. আপনার দেওয়া কোন ছোট আঘাতেও আপনার কাছের মানুষটা গভীরভাবে ডিপ্রেশনে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। হয়তো একটা সময় গিয়ে এই মানুষটাই আপনার অস্তিত্ব ভুলে যাবে। তাই সময় থাকতেই সবাইকে মূল্য দিতে শিখুন। ‌

১৫. মানুষ আসলে বড় কোন শোকে পাথর হয়ে যায়। কিন্তু ছোট ছোট দুঃখগুলো তো মানুষকে হতাশ করে দেয়। এই হতাশাই ধারালো ছুরির মতো হৃদয়ে বিঁধতে থাকে।

১৬. আপনি যখন কাউকে তার ছোট কোনো ব্যর্থতার কথা মনে করিয়ে দেন। তাহলে তখনও আপনি তাকে ডিপ্রেশন থেকে ঠেলে দিচ্ছেন। আপনি হয়তো বুঝতেও পারছেন না সে মনে মনে কতটা ভেঙ্গে যাচ্ছে।

১৭. এ পৃথিবীতে বড় বড় সফল কিংবদন্তি মানুষগুলো ডিপ্রেশন থেকে রেহাই পায়নি। জীবনের একটা সময় এসে প্রচন্ড হতাশায় তারাও বিষাদগ্রস্ত হয়েছে।

১৮. মানুষ যখন একা থাকে তখন সে গভীর ডিপ্রেশনে ভোগে। কারণ স্বভাবত ভাবেই আমরা একা থাকতে পারিনা। আমরা সঙ্গ দিতে পছন্দ করি নিতেও পছন্দ করি। তাই আমাদের উচিত সবসময় সহাবস্থান করা।

শেষ কথা :

আমাদের জীবনে দুঃখ কষ্ট থাকবেই । এটা অত্যন্ত একটি স্বাভাবিক বিষয় । সবার জীবনে একই রমক কষ্ট থাকে না । আমাদের একেক জনের জীবনে একেক রকম কষ্ট থাকে । কষ্টকে স্বাভাবিক ভাবেই মেনে নিতে হবে । আর ডিপ্রেশন থাকবেই, তবে একে প্রশ্রয় দেয়া যাবে না । যতটুকু সম্ভব এই ডিপ্রেশন টাকে এড়িয়ে চলতে হবে । বেঁচে থাকতে হলে এবং সুখী হতে চাইলে ডিপ্রেশন কে মনে জায়গা দেয়া যাবে না । আজ এই পর্যন্তই, সবাই ভালো থাকবেন, ভালো রাখবেন ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *