হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর উক্তি

হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর উক্তি ও বানী সমূহ নিছে দেয়া হলো । এই উক্তি গুলো থেকে আমাদের অনেক কিছু শেখার আছে, তাই আমাদের সবার উচিত এই হাদিস গুলো ভালো করে পড়া । ধন্যবাদ ।

হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর উক্তি বানীঃ

“জান্নাতের চাবি হলো –
‘আল্লাহ ছাড়া কোনো ইলাহ নাই’ এ সাক্ষ্য দেয়া ।”

“তুমি বেশি বেশি সেজদা করবে। কেননা তোমার প্রতিটি সেজদায়,আল্লাহ্তা’আলা তোমার গোনাহ মাফ করবেন এবং মর্যাদা বৃদ্ধি করবেন।”

“যে যুবক একজন যুবতী নারীকে একা পেয়েও আল্লাহর ভয়ে তার ইজ্জতের উপর আঘাত করে না, তার জন্য অপেক্ষা করছে জান্নাতুল ফেরদাউস”হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর বানী

“আল্লাহ তায়ালার ভয়ে তুমি যা কিছু ছেড়ে দিবে, আল্লাহ তোমাকে তার চেয়ে উত্তম কিছু অবশ্যই দান করবেন।”

“বান্দা গোনাহ্ স্বীকার করে মাফ চাইলে, আল্লাহ তা কবুল করেন।”

“রোজ রাতে ঘুমানোর আগে আল্লাহর কাছে তোমার সকল পাপের ক্ষমা চেয়ে তারপর ঘুমাও। হতে পারে কাল সকালে সূর্য দেখার সৌভাগ্য তোমার কপালে আর হলোনা।।”

“যে ব্যাক্তি অপরের নিন্দা করে এবং অপরকে অপমান করে তারা একদিন কষ্টদায়ক পরিনতির স্বীকার হবে।”

Read More >>  ফুল নিয়ে উক্তি

“যে অন্যের বাবা মাকে গালি দিল, সে যেন নিজের বাবা মাকেই গালি দিল “হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর উক্তি

“মৃত্যুর পর সেই সব লোকদের জিহবা আগুনের কাঁচি দিয়ে কাঁটা হবে,যারা অন্য কে উপদেশ দেয়,কিন্তু,সেই উপদেশ নিজেই মানে না”।

“যে ব্যাক্তি আজান শুনে নামাজ পড়বে না, কিয়ামতের দিন তাঁর কানে গরম সীসা ঢেলে দেয়া হবে।”

“যে মহিলা গর্ভ অবস্থায় ১ খতম কোরআন পাঠ করবে, তার গর্ভের ঐ সন্তান ১ জন নেককার বান্দা হিসেবে দুনিয়াতে আগমণ করবে!!”

“যে ব্যক্তি কোনও জ্যোতিষীর কাছে গেলো ও তাকে কিছু জিজ্ঞেস করলো, (ভবিষ্যৎ জানতে চাইলো) চল্লিশ দিন ও রাতের জন্য তার সালাত কবুল হবে না।”হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর হাদিস

“যদি জান্নাতী রমনীদের মধ্যে থেকে কোন রমনী পৃথিবীতে উঁকি দিত তাহলে পূর্ব থেকে পশ্চিমের মাঝে যা কিছু আছে সব আলোক উজ্জ্বল হয়ে যেত ।”

“সবচেয়ে শ্রেষ্ঠ লোক হল সেই,যার হৃদয় হল পরিস্কার এবং জিভ হল সত্যবাদী।”

“বান্দা যতক্ষণ নামাজে থাকে তার মাথার উপর ততক্ষণ নেকী ঝড়তে থাকে”

“আল্লাহ বলেছেনঃ- আমি জান্নাত কে লুকিয়ে রেখেছি দুঃখ কষ্টের ভিতর, আর জাহান্নাম কে লুকিয়ে রেখেছি দুনিয়ার ধন সম্পদ, হাসি- খুশির ভিতর।”হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর কথা

Read More >>  জীবন নিয়ে উক্তি

“যে ভুল করে,সে “মানুষ” যে ভুলের উপর স্থির থাকে, সে “শয়তান” আর যে ভুল করার পর আল্লাহর কাছে ক্ষমা চায় সে “মুমিন”

“যে ব্যক্তি রোযাদারকে ইফতার করাবে সে রোযাদারের সমান সওয়াব পাবে এবং তার সওয়াব কোন ক্ষেত্রে কম হবে না।”

” যার একটি মেয়ে আছে সে জান্নাতে যাবে, যার দুটি মেয়ে আছে সেও জান্নাতে যাবে। আর যার তিনটি মেয়ে আছে সে আমার সাথে জান্নাতে যাবে।”

“আল্লাহ তা’য়ালার ভয়ে তুমি যা কিছু ছেড়ে দিবে আল্লাহ তা`য়ালা তোমাকে তার চেয়ে উত্তম কিছু অবশ্যই দান করবেন।”

““যে ব্যাক্তি আমার নামে মন গড়া কথা রচনা করলো, যা আমি বলিনি, সে যেন তার বাসস্থান জাহান্নামে নির্ধারণ করলো।”

“মানুষ যদি মৃত ব্যাক্তির আর্তনাদ দেখতে এবং শুনতে পেত তাহলে মানুষ মৃত ব্যাক্তির জন্য কান্না না করে নিজের জন্য কাঁদত!”

“‘মুনাফিকের আলামত হচ্ছে তিনটা- যখন সে কথা বলে,মিথ্যা বলে, যখন ওয়াদা করে,ভঙ্গ করে এবং যখন তার নিকট কোন কিছু আমানত রাখা হয়, তা সে খিয়ানত করে ”

“আমার উম্মাতরা যখন নামাযের জন্য “ওজু” করে তখন তাদের হাতের পানি ঝরার সময় তাদের ছগিরাহ গুনাহ ঝরে যায়।”

Read More >>  হাসি নিয়ে উক্তি

“যদি পরিপূর্ণ ঈমানওয়ালা হতে চাও, তবে উত্তম চরিত্র অর্জন করো।”

“যদি কেয়ামতের দিন আল্লাহর দরবারে গুনাহমুক্ত উঠতে চাও, তবে সহবাসের পর দ্রুত পবিত্র হয়ে যাবে।”

“যদি আল্লাহর নিকট বিশেষ সম্মান পেতে চাও, তবে অধিক পরিমাণে আল্লাহর জিকির করো।”

” যদি সবচেয়ে বড় আলেম বা জ্ঞানী হতে চাও, তবে তাকওয়া (আল্লাহ ভীতি) অর্জন করো।”

“তুমি মুমিন হবে তখন, যখন তোমার ভালো কাজ তোমাকে আনন্দ দেবে,আর মন্দ কাজ দেবে মনোকষ্ট।”

“কোনো বান্দাহ ততোক্ষণ পর্যন্ত মুসলিম হয়না, যতোক্ষণ তার মন ও যবান মুসলিম না হয়।”

“যে পরিশুদ্ধ হয়না,তার সালাত হয়না।”

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.